কিভাবে আপনার কম্পিউটারের অপ্রয়োজনীয় ফাইল ডিলিট করবেন?

হার্ড ডিস্ক স্পেস ক্রমশই আরো বেড়ে যাচ্ছে, কিন্তু কিছু কারণ বশত আমাদের হার্ড ডিস্ক স্পেস অটোমেটিক পূর্ণ হয়ে যায়।এটি আরো সত্যি যদি আপনি আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপে SSD (Solid State Drive) ব্যবহার করে থাকেন, যা আপনাকে আরো কম হার্ড ড্রাইভ স্পেস অফার করে মেকানিক্যাল হার্ড ড্রাইভ থাকে।

আপনি যদি আপনার হার্ড ড্রাইভ স্পেস নিয়ে চিন্তিত হন, আজকে আমি আপনাদের সাথে কিছু টিপস শেয়ার করবো যার সাহায্যে আপনার কম্পিউটারের হার্ড ড্রাইভ স্পেস খালি করতে পারবেন।

ডিস্ক পরিষ্করণ করা।

উইন্ডোজ এর সাথে একটি সফটওয়্যার ডিফল্ট ভাবে আসে, যার সহজে আপনি আপনার কম্পিউটারের অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলি ডিলিট করতে পারবেন।এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করার জন্য আপনার যা করতে হবে।

আপনার MY COMPUTER এবং আপনি যদি উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করেন, তাহলে THIS PC ওপেন করুন।

আপনি যে ড্রাইভের টেম্পোরারি ফাইল ডিলিট করতে চান, সেই ড্রাইভের উপর right-click করে প্রোপারটিস এ ক্লিক করলে একটি Disk Cleanup নামের একটি অপসন দেখতে পারবেন।

এখন আপনি যে টাইপের ফাইল গুলো ডিলিট করতে চান, সেগুলো সিলেক্ট করে ওকে ক্লিক করলে ওই ফাইল গুলো অটোমেটিক ডিলিট হয়ে যাবে।

ওকে ক্লিক করলে এই সফটওয়্যারটি আপনার ওই ড্রাইভের সকল টেম্পরালি ফাইলস, লগ ফাইলস, আপনার রিসাইকেল বিন এবং অন্যান অপ্রয়োজনীয় ফাইল ডিলিট করে দিবে।

আপনি এটির সাহায্যে আপনার কম্পিউটারের সিস্টেম ফাইলও ডিলিট করতে পারবেন। সিস্টেম ফাইল হলো আপনার আগের উইন্ডোজ সিস্টেম ফাইল গুলি, যেগুলো এখনো আপনার সি ড্রাইভে আছে।যদি আপনি উইন্ডোজ ইনস্টল এর সময় আপনার সি ড্রাইভ ফরমেট না করে থাকেন, তাহলে সেই ফাইল আপনার সি ড্রাইভে WINDOWS.OLD নামক ফোল্ডারে সেভ হয়ে থাকে।
এই সিস্টেম ফাইল গুলো ডিলিট করা খুব সহজ। আপনার এখন শুধু Clean up system files এ ক্লিক করে, আপনি যেই টাইপের ফাইল ডিলিট করতে চান ঐগুলো সিলেক্ট করে ওকে ক্লিক করলেই ডিলিট হয়ে যাবে।

সিস্টেম ফাইল ডিলিট করার পর, আপনি উপরে একটি অপশন দেখতে পারবেন “More Options” নামের।ঐখানে ক্লিক করে, clean up ব্রাটনে ক্লিক করবেন। এটা করলে আপনার কম্পিউটার আগের চেয়ে বেশি স্পিড বেড়ে যাবে।

আপনার কম্পিউটারের অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যার আনইনস্টল করা।

আপনার কম্পিউটারে আপনি হয়তো অনেক অব্যবহৃত সফটওয়্যার ইনস্টল করে রেখেছেন। আপনি যদি ওই সফটওয়্যার গুলি আনইনস্টল করেন তাহলে আপনার কম্পিউটারের স্পিড এবং স্পেস ২টি বৃদ্ধি পাবে।আপনি আপনার কন্ট্রোল প্যানেলে দেখতে পারবেন যে এই প্রোগ্যাম আপনার কম্পিউটারে কত ডিস্ক স্পেস নিয়েছে। এগুলো আপনি Control Panel\Programs\Programs and Features এ দেখতে পারবেন অথবা আপনি স্টার্ট মেনুতে সার্চ করতে পারেন সফটওয়্যার আনইনস্টল “Uninstall programs” লিখে।

আপনি এছাড়াও থার্ড-পার্টি uninstaller ব্যবহার করতে পারেন। যেমন Revo Uninstaller
আর আপনি যদি উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি Settings-> System -> Apps & features এ যেতে পারেন।

এইখানে আপনি আপনার কম্পিউটারে উইন্ডোজ স্টোর থেকে ডাউনলোড করা ফাইল ডিলিট করতে পারবেন। এর সাথে আপনি অবশ্যই আপনার পুরাতন ইনিন্সটলার ব্যবহার করতে পারবেন যা আপনার উইন্ডোজের কন্ট্রোল প্যানেলে আছে।

এনালাইজ ডিস্ক স্পেস।

আপনি যদি দেখতে চান, আপনার কম্পিউটারে কি টাইপের ফাইল আপনার হার্ড ডিস্ক স্পেস ফুল করে রেখেছে। তাহলে আপনি এই  hard disk analysis প্রোগ্রামটি ব্যবহার করতে পারেন। এই সফটওয়্যারটি দিয়ে আপনার কম্পিউটার স্ক্যান করতে পারবেন এবং দেখতে পারবেন কোন টাইপের ফাইল বেশি স্পেস নিয়েছে। এখন আপনি আপনার কম্পিউটারের ডিফল্ড ভাবেই একটি সফটওয়্যার আসে, যা আপনার কম্পিউটারের সেটিংস এ আছে। ইহা ব্যবহারের জন্য আপনি ফাস্ট Settings > System > Storage এ যাওয়ার পর।

আপনি যে ড্রাইভ চেক করতে চান সেই ড্রাইভের উপর ক্লিক করলে আপনি দেখতে পারবেন, যে আপনার এই ড্রাইভ এ কি কি ফাইল আছে এবং কত জিবি ফাইল আছে তা আপনি দেখতে পারবেন।

টেম্পোরারি ফাইল ডিলিট করা।

আপনার কম্পিউটারের রেম, প্রসেসর কিন্তু শক্তিশালী হবার পরও। আপনার কম্পিউটার দেখে থাকবেন, কিছু সময় কম্পিউটার দেখবেন খুবই স্লোও হয়ে যায়। এটার কারণ হলো আপনার কম্পিউটারে অনেক বেশি টেম্পোরারি ফাইল জমা হয়ে চলেছে। যেমন: গুগল ক্রোম বা ফায়ারফক্স এর caches যা আপনার কম্পিউটারের গিগাবাইট বেশি ডাটা ব্যবহার করতে পারে। আপনার ব্রাউজার cache আপনার কম্পিউটারের হার্ড ডিস্কে সেভ হবার কারণ, এখন আপনি যে সাইট গুলো ভিজিট করেন সেগুলো যেন খুব স্পীডে লোড হয় এবং আপনার সময় বাঁচে।
আপনি এইসব ফাইল পরিষ্কার করার জন্য CCleaner ব্যবহার করতে পারেন।CCleaner আপনার কম্পিউটারের থার্ড-পার্টি সফটওয়্যার থেকে তৈরী হয়ে আবর্জনা ফাইল বা টেম্পোরারি ফাইল ডিলিট করতে সাহায্য করে।

ডুপ্লিকেট ফাইল খুঁজুন।

আপনি অনেক সময় আপনার কম্পিউটারের একটি ফাইল ২ জায়গায় রেখে থাকবেন।যার ফলে আপনি কম্পিউটারের ডিস্ক অপচয় করে থাকেন। ডুপ্লিকেট ফাইল খোঁজার জন্য আপনি Duplicate Cleaner Pro ব্যবহার করতে পারে। যার সাহায্যে শুধু ভালো ইন্টারফেসেই , এই সফ্টওয়ারটি আপনাকে ডুপ্লিকেট ফাইল খুঁজতে এবং ডিলিট করতে সাহায্য করে।

সিস্টেম রি-ষ্টোর জন্য ব্যবহার করা স্পেসের পরিমাণ কম রাখুন।
আপনার কম্পিউটারের সিস্টেম রি-ষ্টোর , আপনার কম্পিউটারের ডিস্ক স্পেস ব্যবহার করে থাকে।

সিস্টেম রি-ষ্টোর কমানোর জন্য আপনার যা করতে হবে:

প্রথমে আপনি Control Panel\System and Security\System এ যাওয়ার পরে, ঐখানে system protection নামের একটি অফশন দেখতে পারবেন। এর পরে আপনি সি( c)ড্রাইভে ক্লিক করে কনফিগারে ক্লিক করে এপ্লাই করে দিন এবং ওকে ক্লিক করুন।

নিউক্লিয়ার অপশনস।

এই ট্রিক্সটি অবশ্যই আপনার কম্পিউটারের ডিস্ক স্পেস সেভ করবে , কিন্তু আমি আপনাকে এই কাজটি করার সুপারিশ করবো না । কারণ এই কারণে আপনার কিছু উইন্ডোস ফিচারস ডিসএবল হয়ে যাবে । কিন্তু যদি আপনার নিঃসন্দেহে ডিস্ক স্পেস প্রয়োজন হয় তারা এই টিস্কটির সাহায্য নিতে পারেন:

হাইবারনেশন বন্ধ করা – হাইবারনেশন প্রায় কম্পিউটার স্লিপ মোডের মতোই, যখন আপনি আপনার কম্পিউটার হাইবারনেশন করেন তখন আপনার কম্পিউটার যেমন  ছিল বা যেই সফটওয়্যার গুলো ওপেন ছিল সব চালু রেখে কম্পিউটার বন্ধ করে দেয়া। যখন আপনি আপনার কম্পিউটার হাইবারনেশন করেন, তখন আপনার র্যামে রান করা ফাইল গুলো আপনার হার্ড ড্রাইভে সেভ করে রাখে। হাইবারনেশন আপনাকে সিস্টেম স্টেট কোনো পাওয়ার ছাড়া সেভ করে রাখতে পারবেন।এরপরে আপনি যখন আপনার কম্পিউটার বুট করবেন তখন হার্ড ড্রাইভ থাকে, আপনার র্যামে লোড করে দেয়া হবে, এই ফাইলটি আপনার কম্পিউটারের C ড্রাইভে hiberfil.sys নামে সেভ হয়। আপনি আপনার কম্পিউটারের ডিস্ক সেভ করতে হাইবারনেশন বন্ধ করতে পারেন।


একটি কথা আপনি কখনো সম্পূর্ণ হার্ড ড্রাইভ স্পেস পাবেন না, যা আপনার হার্ড ডিস্কের বক্সে লেখা থাকে। আমাদের পোস্টটি কেমন লাগলো কমেন্টে জানাবেন , আর যদি কোনো সমস্যা থাকে তাহলে আমাদের পেজে জানাতে পারেন। আমরা হেল্প করার চেস্টা করবো ইন শা আল্লাহ ।

label,

About the author

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *